৪ঠা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ | ৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

ঘটমান সংবাদ এ স্বাগতম।  সাথেই থাকুন।
হোমজাতীয়বাসে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া, ক্ষুব্ধ যাত্রীরা

বাসে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া, ক্ষুব্ধ যাত্রীরা

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের নির্ধারিত নতুন ভাড়ার তালিকা বাসে টাঙানো না থাকায় রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে বাসে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া, ক্ষুব্ধ যাত্রীরা। এ নিয়ে প্রায় প্রতিটি বাসেই বাস শ্রমিকদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়াচ্ছেন যাত্রীরা। তাদের অভিযোগ, নতুন ভাড়ার চার্ট না আসার কারণে হেলপাররা ইচ্ছেমতো ভাড়া আদায় করছেন।

৮ আগস্ট রাজধানীর মিরপুর, গাবতলী, আসাদগেট, ফার্মগেটসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে গত দুই দিনের তুলনায় বাসের সংখ্যা কিছুটা বেশি। তবে ভাড়া নিয়ে মধ্যবিত্ত শ্রেণির ওপর জুলুম চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন অনেকেই।

আসাদ গেট এলাকায় এক যাত্রী বলেন, বাধ্য হয়েই আমাদের গণপরিবহনে চলতে হয়। আর তাদের দাবি অনুযায়ী অতিরিক্ত ভাড়া দিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে। আমরাতো কোণঠাসা হয়ে পড়ছি। এ নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানান বিভিন্ন রুটের যাত্রীরা।

এক বাস যাত্রী বলেন, তেলের দাম বেড়েছে তার পরিপ্রেক্ষিতে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ ভাড়াও বেড়েছে। তাতে আমাদের কোন আপত্তি নেই। কিন্তু বাসের হেলপাররা অতিরিক্ত ভাড়া দাবি করছেন এবং তারা তাদের চাহিদা অনুযায়ী বিভিন্ন রোডে ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি নিচ্ছে। এসব বিষয়গুলো কি কারও নজরে পড়ছে না।

বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানের একজন চাকরিজীবী বলেন, ভাড়ার চার্ট যেন প্রতিটি বাসে রাখা হয় এবং সে অনুযায়ী যেন ভাড়া আদায় করা হয়, যাত্রী হিসেবে আমাদের এটাই চাওয়া। একদিকে ভাড়া বেড়েছে আর সে কারণেই আজ যেন ভোগান্তিতে না পড়তে হয় এ বিষয়টি যেন সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নজরে আনেন।

রাজধানীর একটি কলেজের শিক্ষার্থী জানান, তেলের দাম বাড়ার পর থেকে আমরা যারা শিক্ষার্থী রয়েছি, তাদের ভোগান্তি আরও বেড়ে গেছে। হাফ ভাড়া নেওয়ার কথা থাকলেও অনেক ক্ষেত্রেই হাফ ভাড়া না নিয়ে বাসে আদায় করা হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়া।

বিভিন্ন কোম্পানির বাসে এখনও চলছে ‘ওয়েবিল সিস্টেম’। আর ওয়েবিলের কথা বলেও অনেকে অতিরিক্ত ভাড়া চাইছেন। মোহাম্মদপুর থেকে আব্দুলাহপুরগামী পরিস্থান ও প্রজাপতি গাড়িতে কলেজগেট যাচ্ছিলেন এক যাত্রী। তার সঙ্গে আসাদ গেট এলাকায় বাগবিতণ্ডা চলছিলো বাসের হেলপারের। তিনি ওয়েবিলের দোহাই দিয়ে বাস ভাড়া দাবি করছেন ১৫ টাকা। ওই যাত্রী বলেন, যতটুকু পথ যাত্রী তার দূরত্ব দুই কিলোমিটারেরও একটু বেশি। প্রতি কিলোমিটারে ২ টাকা ৫০ পয়সা হিসাবেও ভাড়া ৫-৬ টাকার বেশি না। সর্বনিম্ন ভাড়া হিসাবে ১০ টাকা নিতে পারে। অথচ নেওয়া হচ্ছে ১৫ টাকা। এটা এক প্রকার জুলুম

এ বিষয়ে হেলপারের কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনও জবাব না দিয়ে শুধু বলেন, ভাড়া বেড়েছে।

এদিকে, বিআরটিএর পক্ষ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়ের বিষয়টি তদারকির জন্য ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার ধারাবাহিকতায় গাবতলীতে পরিচালিত হয় ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান। আদালত ১০ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ জুবের আলম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমরা মাঠে রয়েছি। যাত্রীদের বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আদালত ৩ এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজ্জাদুল হাসান রাজধানী বনানী এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এর আগে তিনি মহাখালী বাস টার্মিনাল এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। তিনি বলেন, সরকার নির্ধারিত অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে যে ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন আমরা সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছি।

আরও পড়ুন: ঢাকার দুই মেয়র মন্ত্রীর পদমর্যাদা পাচ্ছেন

Print Friendly, PDF & Email

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

- Advertisment -

সর্বশেষ খবর

Recent Comments

Bengali BN English EN